বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০

মৈথিল কোকিল কাকে বলা হয় ? বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে বিদ্যাপতির অবদান সম্পর্কে আলোচনা ।

পশ্চিম বঙ্গ বোড একাদশ শ্রেণী বাংলা পাঠ্য কবিতা নীলধ্বজের প্রতি জনা সাজেশন বা কয়েক টি গুরুত্ব পূর্ণ প্রশ্ন , একাদশ শ্রেণী বাংলা সাজেশন , একাদশ শ্রেণী বাংলা কবিতা সাজেশন , একাদশ শ্রেণী বাংলা কবিতা নীলধ্বজের প্রতি জনা সাজেশন , একাদশ শ্রেণী বাংলা কবিতা বড়ো রচোনাধর্মি প্রশ্ন , একাদশ শ্রেণী ফাইনাল পরীক্ষা বাংলা কবিতা নীলধ্বজের প্রতি জনা সাজেশন , WB class xi Bangla suggestions, class eleven Bangla suggestions, class 11 bangla kobita suggestions, class 11 Bangla Kobita nildhojer proti jona suggestions, মৈথিল কোকিল কাকে বলা হয় ? বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে বিদ্যাপতির অবদান সম্পর্কে আলোচনা ।  মৈথিল কোকিল কাকে বলা হয় ? বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে বিদ্যাপতির অবদান সম্পর্কে আলোচনা ।



মৈথিল কোকিল কাকে বলা হয় ? বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে বিদ্যাপতির অবদান সম্পর্কে আলোচনা । 

উত্তর :-  বিদ্যাপতি কে মৈথিল কোকিল বলা হয় । 
[   ] বিদ্যাপতি বাংলা সাহিত্যে প্রবাসী শিল্পী তবু তিনি তাঁর সাহিত্য কীর্তির নানামুখী আবেদন বাংলা সাহিত্যে রেখে গেছেন । বিদ্যাপতি বাংলা ভাষায় একচ্ছত্র লেখেননি , জন্মগত দিক থেকে তাঁর পরিচিতি মিথিলার সাথে সংশ্লিষ্ট । বিদ্যাপতি জন্মসূত্রে মৈথিলী এবং কর্মসূত্রের মিথিলার কবি তবুও বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস তাকে দিয়েছে এক গৌরবময় স্থান । 

[   ] মৈথিলীর কবি বিদ্যাপতি সম্ভবত ১৩৮০ - ১৪৬০ খিস্টাব্দে পযন্ত বিভিন্ন রাজাদের তত্ত্বাবধানে থেকে বহুবিধ শাস্ত্র চর্চার সঙ্গে সাহিত্য চর্চা করেছেন । তার পদ গুলিতে রাধাকৃষ্ণ প্রেম বর্ননা থাকলেও সে রাধাচিত লৌকিক প্রেমবিকাশের পথেই অগ্রসর হয়েছে । একটি বালিকা ধীরে ধীরে কিশোরী , নবযৌবনা হয়ে ওঠেছে কামজলায় অনভিজ্ঞা কৃষ্ণের কি করে পুনাঙ্গ নায়িকা হয়ে ওঠেছে । আবার প্রেমানুভুতি ধীরে ধীরে দেহমনকে আচ্ছন্ন করে নায়িকার অপূর্ব ভাবান্তর কীভাবে এনে দিয়েছে বিদ্যাপতি তার অপূর্ব স্তর বিন্যাস অঙ্কন করেছেন । 


[    ] মিথিলার রাজসভার কবি বিদ্যাপতি রাধাকৃষ্ণের পূর্বরাগ - অনুরাগ - অভিসার - মাথুর - ভবল্লাস এবং প্রথনা বিষয়ক পদ রচনায় কৃতিত্ব দেখিয়েছেন  ।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

/>