একটি ছুটির দিন বাংলা রচনা



akti-chutir-din-bangla-rochona





ভূমিকা :– নিত্য – নৈমিত্তিক একঘেয়ে জীবনের মাঝে একটি ছুটির দিন আনন্দের দিন , বিনোদনের দিন , কর্মব্যস্ততার মাঝে ক্লান্তি অপনোদনের দিন । ছুটির আনন্দ মুক্তির আনন্দ । তাই সারা সপ্তাহের ক্লান্তির ভাব নিঃশেষে হালকা করে নেবার জন্য ছুটির প্রয়োজন ও আয়োজন । তবু ছুটির একটা অন্য মজা আছে । অবশ্য সেই ছুটি যদি হয় ওট অতিরিক্ত সংযোজন , তবেই । হটাৎ করে অপ্রত্যাশিত ভাবেই ছুটিটা পেয়ে গেলাম । মা - বাবাও যান অসুস্থ এক বন্ধুকে দেখতে । অথাৎ ষোলো আনা ছুটি ।





গুরুত্ব :– ছুটির দিন মানেই সবার সঙ্গে জমিয়ে গল্প করার দিন , প্রিয় শখের চর্চার দিন , ভালোভাবে সবাইকে নিয়ে ভোজনের দিন , সেই সঙ্গে অলস ভাবে সময় কাটাবারও দিন । আসলে ছুটি মানেই নির্দিষ্ট নিয়ম বন্ধ্ণের বাইরে নিজের মতো করে স্বাধীন বিচরণের এক অফুরন্ত অবসর । সেদিন মানুষের কাছে তা হয়ে ওঠে আনন্দের দিন ।



বর্ণনা :– সাত সকালেই লেখাপড়া সঙ্গো করে জানালার ধারে বসলাম । মেঘ না চাইতেই জল । দিনটা আমারই জন্য কিনা কে জানে । জানালার ধারে বসতেই আরম্ভ হয় ঝরঝর ঝিরিঝিরি অকাল বর্ষণ । দমকা একটা হাওয়া এসে হটাৎ বৃষ্টি ধারায় আমাকে ভিজিয়ে দিয়ে যায় । হটাৎ মনে পড়ে যায় দুটো পংক্তি – " ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি এল , বৃষ্টি এল খাতার পর । "
অমনি উপন্যাসের আবহের মতোই বাজ পড়ে কাছে কোথাও । বৃষ্টির অবিরাম ধারাপাত, সঙ্গে উদ্দাম হাওয়ার তাণ্ডব । প্রবল বাতাস যেন যুদ্ধ ঘোসনা করে চলেছে সমস্ত পুরাতনের বিরুদ্ধে । পুরাতনির প্রথাভঙ্গে তার অসীম আগ্রহ । বিশাল বিশাল দ্বৈতের মতো গাছগুলো অপরূপ ভঙ্গিমায় কার কাছে যেন জানাতে থাকে সকরুণ মিনতি । মেঘদূতের আকাশের শ্যামল কৃষ্ণ আভা যেন মনে করিয়ে দেয় রাধিকা – দয়িতকে । মনে পড়ে যায় আরো এক মুহুতের কথা । আষাঢ় মাসের মেঘের প্রথম উন্নেষে বিরহী যক্ষের সেই অমর অভিব্যক্তির চিরন্তন কাহিনীর প্রারমবক্ষণ ।





উপলদ্ধি :– বৃষ্টির খামখেয়ালীতে মানুষ জনের আনন্দ আছে , কিন্তু দুর্দশারও সীমা নেই । পায়ে কাদার আশ্লেষ নিয়ে কমরত মানুষজনের বিব্রত মুখেই দুর্দশার যথেষ্ট বদ্ধ প্রকাশ । দিনের বিচিত্র লীলা শেষ হয় । রাত্রি আসে । এখনো বাইরে বৃষ্টির ছিটেফোটা । শোবার আয়োজন ও সারা । শুনে যাব , হটাৎ বাধা পড়ে । পাশের বাড়ির ভদ্রলোক গান চেঁচিয়ে  ধরেছেন । ইন্দ্রণাথের নতুনদার ' ঠুন ঠুন পেয়ালা ' কত মধুর ছিল জানি না , তবে কিনা এই বৃষ্টিতে কুকুরের দল নিজেদের নিয়েই ব্যাস্ত , নইলে শ্রেষ্টতের পরীক্ষা হয়ে যেত আজই । যদিও বা ভদ্রলোক থামেন , এতক্ষন ধরে যাদের প্রায় অগ্রাহ করে এসেছি , সেই ব্যাঙ মশাইয়ের দল যেন আমার এই অপরাধের প্রতিবাদটাই আরো জোড়ে জানান দিতে থাকে । ঘুম আসেনা –নিদ্রাহীন রাত । ' রজনী শাওন ঘন / ঘন দেয়া গরজন ' ও কেবল কবির কাব্যই মানায় । বাদল রানীর এই বিকৃতিটা সুবিধা ঠেকে না আদো । আজকের দিনটার সব ভালো , কিন্তু ব্যাঙের ডাক ?





অনুসরণে লেখা যায় :– একটি ছুটির দিনের উপলদ্ধি




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন